Advertisements
Home / Tag Archives: প্রেমের কবিতা

Tag Archives: প্রেমের কবিতা

মিথ্যাবাদী, তোকে ভালোবাসি – লুৎফর হাসান

তুমি তােমার টুকরাে টুকরাে মিথ্যে কথা। আমার কবরের ঘাসের সাথে রেখে এসে, দেখবে সেসব নয়নতারা ফুল হয়ে ফুটতে শুরু করেছে। তুমি তােমার বড় বড় মিথ্যে কথা আমার কবরের কোনায় পুতে এসে, দেখবে সে সব একদিন।

Read More »

বিরহ – বিক্রম ঘোষ

যতটুকু ভালোবাসা রেখেছি বাকি, যদি পারো অবশেষে ফিরিয়ে দিয়ো আমায়। শেষ নক্ষত্রের রাত। শব্দশূন্য আঁধার আসে কোন তারা নেই, জেগে থাকবে অনন্ত আকাশে কিছু তারা বাঁচে আমার মতো করে, আঁধারে। হয়তো তুমি আছো বলে এক শতাব্দী দূরে

Read More »

যখ – স্মরণজিৎ চক্রবর্তী

আমি তোমার কাছে খারাপ বাকি সবার কাছে ভাল কোনও অন্ধ কুয়োতলায় যেন একলা মৃদু আলো আমি সবার কাছে আকাশ শুধু তোমার কাছে ঘুড়ি এই ভাঙা শহর নিয়ে তাকে ইচ্ছে মতো জুড়ি আর বিক্রি করি একা ব্যাগে রাংতা করি জড়ো কোনও মেসেজ এলেই ভাবি তুমি আমায় মনে করো? ভুল ভাঙতে জীবন ...

Read More »

ইচ্ছা – মহাদেব সাহা

হয়তো এই পাহাড় সমান উঁচু হতে চায় কেউ আমি মাটিতে মেশা ঘাস হতে ভালোবাসি, যার মাড়িয়ে যাওয়ার সে মাড়িয়ে যাক ঘাস তবু ঘাসের বুকেই জমে শিশিরবিন্দু ; হয়তো কেউ পার হতে চায় দীর্ঘ দূরের পথ আমি বাড়ির উঠোনে লুটিয়ে থাকি, উঠানের কোণে হয়ে থাকি চারাগাছ সেইখানে ঐ দূর আকাশকে ডাকি ...

Read More »

আক্রোশ – নির্মলেন্দু গুণ

আকাশের তারা ছিঁড়ে ফেলি আক্রোশে, বিরহের মুখে স্বপ্নকে করি জয়ী; পরশমথিত ফেলে আসা দিনগুলি ভুলে গেলে এতো দ্রুতো,হে ছলনাময়ী? পোড়াতে পোড়াতে চৌচির চিতা নদী চন্দনবনে আগ্নির মতো জ্বলে, ভূকম্পনের শিখরে তোমার মুখ হঠাৎ স্মৃতির পরশনে গেছে গলে ।

Read More »

গতকাল একদিন – নির্মলেন্দু গুণ

গতকাল বড়ো ছেলেবেলা ছিল আমাদের চারিধারে, দেয়ালের মতো অনুভূতিমাখা মোম জ্বালিয়ে জ্বালিয়ে আমারা দেখেছি শিখার ভিতরে মুখ । গতকাল ছিল জীবনের কিছু মরণের মতো সুখ ।

Read More »

পতিগৃহে পুরোনো প্রেমিক – নির্মলেন্দু গুণ

পাঁজরে প্রবিষ্ট প্রেম জেগে ওঠে পরাজিত মুখে, পতিগৃহে যেরকম পুরোনো প্রেমিক স্বামী ও সংসারে মুখোমুখি । প্রত্যাখ্যানে কষ্ট পাই,–ভাবি, মিথ্যে হোক সত্যে নাই পাওয়া । বুকের কার্নিশে এসে মাঝে-মধ্যে বসো প্রিয়তমা, এখানে আনন্দ পাবে, পাবে খোলা হাওয়া ।

Read More »

হাসানের জন্যে এলিজি – নির্মলেন্দু গুণ

প্রেমিকারা নয়, নাম ধরে যারা ডাকে তারা ঝিঁঝি, তাদের যৎসামান্য পরিচয় জানা থাকা ভালো; বলতেই মৃত্তিকারা বক্ষ চিরে তোমাকে দেখালো–; অভ্যন্তরে কী ব্যাকুল তুমি পড়ো ডুয়িনো এলিজি । কবরে কী করে লেখো? মাটি কি কাগজ? খাতা? ভালোবেসে উস্কে দিই প্রাণের পিদিম, এই নাও,

Read More »

প্রশ্নাবলী – নির্মলেন্দু গুণ

কী ক’রে এমন তীক্ষ্ণ বানালে আখিঁ, কী ক’রে এমন সাজালে সুতনু শিখা? যেদিকে ফেরাও সেদিকে পৃথিবী পোড়ে । সোনার কাঁকন যখন যেখানে রাখো, সেখানে শিহরে, ঝংকার ওঠে সুরে ।

Read More »

স্মরণ – নির্মলেন্দু গুণ

নাম ভুলে গেছি, দুর্বল মেধা স্মরণে রেখেছি মুখ; কাল রজনীতে চিনিব তোমায় আপাতত স্মৃতিভুক । ডাকিব না প্রিয়, কেবলি দেখিব দু’চোখে পরান ভরে; পূজারী যেমন প্রতিমার মুখে প্রদীপ তুলিয়া ধরে ।

Read More »

বউ – নির্মলেন্দু গুণ

কে কবে বলেছে হবে না? হবে,বউ থেকে হবে । একদি আমিও বলেছিঃ ‘ওসবে হবে না ।’ বাজে কথা । আজ বলি,হবে,বউ থেকে হবে । বউ থেকে হয় মানুষের পুনর্জন্ম,মাটি,লোহা, সোনার কবিতা, —কী সে নয়?

Read More »

আবার যখনই দেখা হবে – নির্মলেন্দু গুণ

আবার যখনই দেখা হবে, আমি প্রথম সুযোগেই বলে দেব স্ট্রেটকাটঃ ‘ভালোবাসি’। এরকম সত্য-ভাষণে যদি কেঁপে ওঠে, অথবা ঠোঁটের কাছে উচ্চারিত শব্দ থেমে যায়, আমি নখাগ্রে দেখাবো প্রেম, ভালোবাসা, বক্ষ চিরে

Read More »

কথোপকথন –৬ – পুর্নেন্দু পত্রী

কালকে এলে না, আজ চলে গেল দিন এখন মেঘলা, বৃষ্টি অনতিদূরে। ভয়াল বৃষ্টি, কলকাতা ডুবে যাবে। এখনো কি তুমি খুঁজছো নেলপালিশ? শাড়ি পরা ছিল? তাহলে এলে না কেন?

Read More »

মালতীবালা বালিকা বিদ্যালয় – জয় গোস্বামী

বেণীমাধব, বেণীমাধব, তোমার বাড়ি যাবো বেণীমাধব, তুমি কি আর আমার কথা ভাবো? বেণীমাধব, মোহনবাঁশি তমাল তরুমূলে বাজিয়েছিলে, আমি তখন মালতী ইস্কুলে ডেস্কে বসে অঙ্ক করি, ছোট্ট ক্লাসঘর

Read More »

ছন্দরীতি – মহাদেব সাহা

তোমাদের কথায় কথায় এতো ব্যকরণ তোমাদের উঠতে বসতে এতো অভিধান, কিন্তু চঞ্চল ঝর্ণার কোনো ব্যাকরণ নেই আকাশের কোনো অভিধান নেই, সমুদ্রের নেই। ভালোবাসা ব্যাকরণ মানে না কখনো

Read More »

কে চায় তোমাকে পেলে – মহাদেব সাহা

বলো না তোমাকে পেলে কোন মূর্খ অর্থ-পদ চায় বলো কে চায় তোমাকে ফেলে স্বর্ণসিংহাসন জয়ের শিরোপা আর খ্যাতির সম্মান, কে চায় সোনার খনি তোমার বুকের এই স্বর্ণচাঁপা পেলে? তোমার স্বীকৃতি পেলে কে চায় মঞ্চের মালা কে চায় তাহলে আর মানপত্র তোমার হাতের চিঠি পেলে,

Read More »