বামপন্থী কবিতা

একটা ফুলকির জন্যে – নবারুণ ভট্টাচার্য

একটা কথায় ফুলকি উড়ে শুকনো ঘাসে পড়বে কবে
সারা শহর উথাল পাথাল, ভীষণ রাগে যুদ্ধ হবেRead More »একটা ফুলকির জন্যে – নবারুণ ভট্টাচার্য

আমার একটা মোটরগাড়ি চাই – নবারুণ ভট্টাচার্য

তিরিশ হাজার লোক ভাসছে
নোনা জলের ধাক্কায় তাদের নাক-মুখ দিয়ে রক্ত বেরোচ্ছে
সেই জন্যে আমার একটা মোটরগাড়ি চাই।
লোড শেডিং-এ গলে যাচ্ছে বরফ রেফ্রিজারেটরেRead More »আমার একটা মোটরগাড়ি চাই – নবারুণ ভট্টাচার্য

আমাকে দেখা যাক বা না যাক – নবারুণ ভট্টাচার্য

কে আমার হৃদ্‌পিণ্ডের ওপরে মাথা রেখে ঘুমোয়
কে আমাকে দুধ ও ভাতের গন্ধ দিয়ে আড়াল করে
কে আমার মাটি যেখানে আমি বৃষ্টির মতো শুষে যাই
আমি যখন দূষিত আকাশে হাঁপিয়ে হাঁপিয়ে উড়ি
আমার পালকে ছাই জমে জমে ধূসর হয়ে যায়Read More »আমাকে দেখা যাক বা না যাক – নবারুণ ভট্টাচার্য

চে গেভারা – সুনীতি দেবনাথ

এবং তাঁকে হত্যা করা হল—
লা ইগেরার ছোট্ট স্কুল ঘরে
পাহাড় অরণ্যের যুগলবন্দীর মাঝখানে।
হত্যাকারী রেঞ্জার ছদ্মবেশী তিন অফিসার
সাম্রাজ্যবাদীর তল্পিবাহক আর এক সি আই এ এজেন্ট।Read More »চে গেভারা – সুনীতি দেবনাথ

আকাশে ওড়ার স্বপ্ন ছিল যে মেয়েটার – প্রদীপ বালা

আকাশ দেখার স্বপ্ন ছিল মেয়েটার
ছোট থেকেই আকাশে পাখি হয়ে ওড়ার
সাধ ছিল তার
মফঃস্বল থেকে শহরে এলো যেদিন
জীবনে প্রথমবার কলেজ ক্যাম্পাসের
সোনালী রোদ গায়ে এসে পড়েছিল
সে বুঝতে পারল আকাশের অনেক কাছাকাছি আছেRead More »আকাশে ওড়ার স্বপ্ন ছিল যে মেয়েটার – প্রদীপ বালা

একটা রক্তকরবী ফুটবে বলে – প্রদীপ বালা

একটা রক্ত করবী ফুটবে বলে
                                দাঁড়িয়ে আছি
ঋতু আসে ঋতু যায়
ভীড় ঠেলা ট্রাম ব্যস্ত মানুষ
সব পেরিয়ে দাঁড়িয়ে আছি
ঝুপ করে ফের সন্ধ্যা নামে
ক্লান্ত পাখির ডানার ঝাঁপটা
শুনতে শুনতে দাঁড়িয়ে আছি
এই শহরে আবারও ফের
বসন্তেরই অপেক্ষাতে
                                দাঁড়িয়ে আছিRead More »একটা রক্তকরবী ফুটবে বলে – প্রদীপ বালা

একটি লাল রঙের ওড়না – প্রদীপ বালা

ভোর হলেই বাইশ বছরের বে-রোজগার
ছেলেটির হাত ধরে যে মেয়েটি
বাড়ি ছাড়বে বলে জেগে বসে আছে
তার প্রিয় ওড়নার রঙ লালRead More »একটি লাল রঙের ওড়না – প্রদীপ বালা

হে রাষ্ট্রযন্ত্র শুনতে পাচ্ছ? – প্রদীপ বালা

(ছত্তিশগড়ে মাওবাদী সন্দেহে পুলিশের ভুয়ো এনকাউন্টারে মৃত ১৯ বছরের বিবেক কোডামাগুন্ডলা – ১৫ই জুন ২০১৫ খবরে প্রকাশিত)

বৃষ্টি পড়ছে
ঝুম বৃষ্টি পড়ছে

হারান মন্ডলের চোখে ঘুম নেই
হারান মন্ডল ধানক্ষেতের আলে দাঁড়িয়ে থাকে
যুবতী ধানক্ষেত, গা বেয়ে গড়িয়ে পড়া জল
হারান মন্ডলের চোখে ঘুম নেইRead More »হে রাষ্ট্রযন্ত্র শুনতে পাচ্ছ? – প্রদীপ বালা

গ্রেনেড – প্রদীপ বালা

পড়ন্ত বিকেলে যাদের পেচ্ছাব হলুদ হয়ে আসে
আর রাত নামলে ফুটপাতে ত্রিফলার আলোয়
শুয়ে শুয়ে উঁচু উঁচু ইমারতের ইট খাওয়ার স্বপ্ন দ্যাখে
ওই দ্যাখো, দেখতে পাচ্ছ
আকাশের গায়ে তাঁদের মুষ্টিবদ্ধ হাত
হাতে হাতে সূর্যের গ্রেনেড
Read More »গ্রেনেড – প্রদীপ বালা

জনতার মুখে ফোটে বিদ্যুৎবাণী – সুকান্ত ভট্টাচার্য

কত যুগ, কত বর্ষান্তের শেষে
জনতার মুখে ফোটে বিদ্যুৎবাণী;
আকাশে মেঘের তাড়াহুড়ো দিকে দিকে
বজ্রের কানাকানি।
সহসা ঘুমের তল্লাট ছেড়ে
শান্তি পালাল আজ।
দিন ও রাত্রি হল অস্থির
কাজ, আর শুধু কাজ! Read More »জনতার মুখে ফোটে বিদ্যুৎবাণী – সুকান্ত ভট্টাচার্য

নিষিদ্ধ সম্পাদকীয় – হেলাল হাফিজ

এখন যৌবন যার মিছিলে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময়
এখন যৌবন যার যুদ্ধে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময়
মিছিলের সব হাত
কন্ঠ
পা এক নয় । Read More »নিষিদ্ধ সম্পাদকীয় – হেলাল হাফিজ

তৃতীয় বিশ্বের একজন চাষীর প্রশ্ন – হুমায়ুন আজাদ

আগাছা ছাড়াই, আল বাঁধি, জমি চষি, মই দিই,
বীজ বুনি, নিড়োই, দিনের পর
দিন চোখ ফেলে রাখি শুকনো আকাশের দিকে। ঘাম ঢালি
খেত ভ’রে, আসলে রক্ত ঢেলে দিই
নোনা পানিরূপে; অবশেষে মেঘ ও মাটির দয়া হলে
খেত জুড়ে জাগে প্রফুল্ল সবুজ কম্পন।Read More »তৃতীয় বিশ্বের একজন চাষীর প্রশ্ন – হুমায়ুন আজাদ

আমাকে ক্ষমা কোরো না চে – প্রদীপ বালা

চে তোমার জন্মদিনে একরাশ বৃষ্টি
সে বৃষ্টিতে আমি ঠিক ভিজতে পারিনি
তার বদলে বৃষ্টি বাঁচিয়ে তোমার স্টাইলে
সিগারেট ফুঁকতে চেয়েছি অবিরত
আর দেখে গেছি সেই ঝুম বৃষ্টিতে
ধানক্ষেতে বিপ্লব ঘটাচ্ছে একদল কৃষক
Read More »আমাকে ক্ষমা কোরো না চে – প্রদীপ বালা

আমার শহরঃ যে বৃষ্টির অপেক্ষায় বসে – প্রদীপ বালা

হটাৎ করেই ভাবতে বসি
মুষল ধারে বৃষ্টি হবে
শুকিয়ে যাওয়া আমার শহর
আবার বসে ভিজবে কবে
Read More »আমার শহরঃ যে বৃষ্টির অপেক্ষায় বসে – প্রদীপ বালা

রামবাবু – সুবোধ সরকার

আগে আপনাকে ভালো লাগত, রামবাবু
এখন আপনি বদলে গেছেন।
কখনও কখনও আপনাকে কংগ্রেস মনে হত
কখনও সি.পি.এম
কখনও সি.পি.আই
মার্কিন সেনেটে আপনার নাম উঠেছিলRead More »রামবাবু – সুবোধ সরকার

সেই সব স্বপ্ন – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

কারাগারের ভিতরে পড়েছিল জোছনা
বাইরে হাওয়া, বিষম হাওয়া
সেই হাওয়ায় নশ্বরতার গন্ধ
তবু ফাঁসির আগে দীনেশ গুপ্ত চিঠি লিখেছিল তার বৌদিকে,
“আমি অমর, আমাকে মারিবার সাধ্য কাহারও নাই।”Read More »সেই সব স্বপ্ন – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

এই কি আমার বাংলা? – প্রদীপ বালা

যে পিতা সন্তানের চোখে চোখ রাখতে পারেনা
আমি ঘেন্না করি
যে সন্তান পিতা-মাতার ভালোবাসাকে বুঝতে পারে না
আমি তাদেরও ঘেন্না করি
যে কবি বুদ্ধিজীবী তকমা নিয়ে সরকারের তোষামোদি করে
আর নিক্তিতে ওজন হয়ে যায় আমার প্রিয় শব্দেরা
আমি ঘেন্না করিRead More »এই কি আমার বাংলা? – প্রদীপ বালা

আমার নীরবতা আমার ভাষা – অমিতাভ দাশগুপ্ত

আমার হাতে কোনও শাবল ছিল না,
বাটালিও নয়,
তবু, এতদিন তিলে তিলে গড়ে তোলা দুর্গ
এক দুপুরের বৃষ্টিতে কীভাবে ধুয়ে গেল!
আর
ওই বিশাল পাথুরে অবরোধ-ই যে আড়াল করে রেখেছিল
হার্মাদের মত এক খ্যাপা নদী,Read More »আমার নীরবতা আমার ভাষা – অমিতাভ দাশগুপ্ত

এই মৃত্যু উপত্যকা আমার দেশ না — নবারুন ভট্টাচার্য

যে পিতা সন্তানের লাশ সনাক্ত করতে ভয় পায়
আমি তাকে ঘৃণা করি-
যে ভাই এখনও নির্লজ্জ স্বাভাবিক হয়ে আছে
আমি তাকে ঘৃণা করি-
যে শিক্ষক বুদ্ধিজীবী কবি ও কেরাণী
প্রকাশ্য পথে এই হত্যার প্রতিশোধ চায় না
আমি তাকে ঘৃণা করি-Read More »এই মৃত্যু উপত্যকা আমার দেশ না — নবারুন ভট্টাচার্য

চোখের জল — সুবোধ সরকার

 

মানুষের চোখ থেহে গড়িয়ে পড়া চোখের জল
ভালো লাগে না আমার
সবচেয়ে বড় অপচয়ের নাম চোখের জল
অসহ্য, সরিয়ে নাও তোমার চোখ, আমি তাকাব না

খেতে দিতে না পেরে বাবা চলে গেলেন, মেঘলা আকাশRead More »চোখের জল — সুবোধ সরকার

আমাকে বলতে বলবেন না – প্রদীপ বালা

আমাকে আপনারা বলতে বলবেন না
আমি আপনাদের মত সুবক্তা নই মোটেও
কোনোদিন ছিলামও না
আপনারা ধোপধুরস্ত পোশাক আশাক পরে
ডায়াসে উঠে বক্তৃতা দেনRead More »আমাকে বলতে বলবেন না – প্রদীপ বালা

প্রিয়তমাসু – সুকান্ত ভট্টাচার্য

সীমান্তে আজ আমি প্রহরী।
অনেক রক্তাক্ত পথ অতিক্রম ক’রে
আজ এখানে এসে থমকে দাড়িয়েছি-
স্বদেশের সীমানায়।Read More »প্রিয়তমাসু – সুকান্ত ভট্টাচার্য

চে গুয়েভারার প্রতি – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

চে, তোমার মৃত্যু আমাকে অপরাধী করে দেয়।
আমার ঠোঁট শুকনো হয়ে আসে, বুকের ভেতরটা ফাঁকা
আত্মায় অবিশ্রান্ত বৃষ্টিপতনের শব্দ
শৈশব থেকে বিষণ্ণ দীর্ঘশ্বাস
চে, তোমার মৃত্যু আমাকে অপরধী করে দেয়-
বলিভিয়ার জঙ্গলে নীল প্যান্টালুন পরা
তোমার ছিন্নভিন্ন শরীরRead More »চে গুয়েভারার প্রতি – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

মাস্টারদার হাতঘড়ি – শামসুর রাহমান

মাস্টারদা, আপনি কি হাতঘড়ি পরতেন কখনো?
এই প্রশ্ন আমাকে ঠোকর মেরেছে
অনেকবার। মাস্টারদা, আপনার বিষয়ে
অনেক কিছুই জানা আছে আমার।
আপনার শরীরের গড়ন, মূল্যবান রত্নের মতো
চোখের দীপ্তি, জীবন-যাপনের
ধরন-এরকম

বহুবিধ খুঁটিনাটির আলো আমি পেয়েছিRead More »মাস্টারদার হাতঘড়ি – শামসুর রাহমান

অভিশাপ দিচ্ছি – শামসুর রাহমান

না আমি আসিনি ওল্ড টেস্টামেন্টের প্রাচীন পাতা ফুঁড়ে,
দুর্বাশাও নই, তবু আজ এখানে দাঁড়িয়ে এই রক্ত গোধূলিতে অভিশাপ দিচ্ছি।
আমাদের বুকের ভেতর যারা ভয়ানক কৃষ্ণপক্ষ দিয়েছিলো সেঁটে
মগজের কোষে কোষে যারা পুঁতেছিল
আমাদেরই আপন জনেরই লাশ দগ্ধ, রক্তাপ্লুত
যারা গণহত্যা করেছে শহরে গ্রামে টিলায় নদীতে ক্ষেত ও খামারে
আমি অভিশাপ দিচ্ছি নেকড়ের চেয়েও অধিক পশু সেই সব পশুদের।Read More »অভিশাপ দিচ্ছি – শামসুর রাহমান

শুনুন কমরেডস – অমিতাভ দাশগুপ্ত

সব সময় বিপ্লবের কথা না ব’লে
যদি মাঝে মাঝে প্রেমের কথা বলি—
.                  আমাকে ক্ষমা করবেন, কমরেডস।
সব সময় ইস্তেহার না লিখে
যদি মাঝে মাঝে কবিতা লিখতে চাই—
.                  আমাকে ক্ষমা করবেন, কমরেডস।Read More »শুনুন কমরেডস – অমিতাভ দাশগুপ্ত