Home / Tag Archives: বামপন্থী কবিতা

Tag Archives: বামপন্থী কবিতা

চে গেভারা – সুনীতি দেবনাথ

এবং তাঁকে হত্যা করা হল— লা ইগেরার ছোট্ট স্কুল ঘরে পাহাড় অরণ্যের যুগলবন্দীর মাঝখানে। হত্যাকারী রেঞ্জার ছদ্মবেশী তিন অফিসার সাম্রাজ্যবাদীর তল্পিবাহক আর এক সি আই এ এজেন্ট।

Read More »

একটা রক্তকরবী ফুটবে বলে – প্রদীপ বালা

একটা রক্ত করবী ফুটবে বলে                                 দাঁড়িয়ে আছি ঋতু আসে ঋতু যায় ভীড় ঠেলা ট্রাম ব্যস্ত মানুষ সব পেরিয়ে দাঁড়িয়ে আছি ঝুপ করে ফের সন্ধ্যা নামে ক্লান্ত পাখির ডানার ঝাঁপটা শুনতে শুনতে দাঁড়িয়ে আছি এই শহরে আবারও ফের বসন্তেরই অপেক্ষাতে                                 দাঁড়িয়ে আছি

Read More »

আকাশে ওড়ার স্বপ্ন ছিল যে মেয়েটার – প্রদীপ বালা

আকাশ দেখার স্বপ্ন ছিল মেয়েটার ছোট থেকেই আকাশে পাখি হয়ে ওড়ার সাধ ছিল তার মফঃস্বল থেকে শহরে এলো যেদিন জীবনে প্রথমবার কলেজ ক্যাম্পাসের সোনালী রোদ গায়ে এসে পড়েছিল সে বুঝতে পারল আকাশের অনেক কাছাকাছি আছে

Read More »

হে রাষ্ট্রযন্ত্র শুনতে পাচ্ছ? – প্রদীপ বালা

(ছত্তিশগড়ে মাওবাদী সন্দেহে পুলিশের ভুয়ো এনকাউন্টারে মৃত ১৯ বছরের বিবেক কোডামাগুন্ডলা – ১৫ই জুন ২০১৫ খবরে প্রকাশিত) বৃষ্টি পড়ছে ঝুম বৃষ্টি পড়ছে হারান মন্ডলের চোখে ঘুম নেই হারান মন্ডল ধানক্ষেতের আলে দাঁড়িয়ে থাকে যুবতী ধানক্ষেত, গা বেয়ে গড়িয়ে পড়া জল হারান মন্ডলের চোখে ঘুম নেই

Read More »

গ্রেনেড – প্রদীপ বালা

পড়ন্ত বিকেলে যাদের পেচ্ছাব হলুদ হয়ে আসে আর রাত নামলে ফুটপাতে ত্রিফলার আলোয় শুয়ে শুয়ে উঁচু উঁচু ইমারতের ইট খাওয়ার স্বপ্ন দ্যাখে ওই দ্যাখো, দেখতে পাচ্ছ আকাশের গায়ে তাঁদের মুষ্টিবদ্ধ হাত হাতে হাতে সূর্যের গ্রেনেড

Read More »

জনতার মুখে ফোটে বিদ্যুৎবাণী – সুকান্ত ভট্টাচার্য

কত যুগ, কত বর্ষান্তের শেষে জনতার মুখে ফোটে বিদ্যুৎবাণী; আকাশে মেঘের তাড়াহুড়ো দিকে দিকে বজ্রের কানাকানি। সহসা ঘুমের তল্লাট ছেড়ে শান্তি পালাল আজ। দিন ও রাত্রি হল অস্থির কাজ, আর শুধু কাজ!

Read More »

তৃতীয় বিশ্বের একজন চাষীর প্রশ্ন – হুমায়ুন আজাদ

আগাছা ছাড়াই, আল বাঁধি, জমি চষি, মই দিই, বীজ বুনি, নিড়োই, দিনের পর দিন চোখ ফেলে রাখি শুকনো আকাশের দিকে। ঘাম ঢালি খেত ভ’রে, আসলে রক্ত ঢেলে দিই নোনা পানিরূপে; অবশেষে মেঘ ও মাটির দয়া হলে খেত জুড়ে জাগে প্রফুল্ল সবুজ কম্পন।

Read More »

আমাকে ক্ষমা কোরো না চে – প্রদীপ বালা

চে তোমার জন্মদিনে একরাশ বৃষ্টি সে বৃষ্টিতে আমি ঠিক ভিজতে পারিনি তার বদলে বৃষ্টি বাঁচিয়ে তোমার স্টাইলে সিগারেট ফুঁকতে চেয়েছি অবিরত আর দেখে গেছি সেই ঝুম বৃষ্টিতে ধানক্ষেতে বিপ্লব ঘটাচ্ছে একদল কৃষক

Read More »

সেই সব স্বপ্ন – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

কারাগারের ভিতরে পড়েছিল জোছনা বাইরে হাওয়া, বিষম হাওয়া সেই হাওয়ায় নশ্বরতার গন্ধ তবু ফাঁসির আগে দীনেশ গুপ্ত চিঠি লিখেছিল তার বৌদিকে, “আমি অমর, আমাকে মারিবার সাধ্য কাহারও নাই।”

Read More »

এই কি আমার বাংলা? – প্রদীপ বালা

যে পিতা সন্তানের চোখে চোখ রাখতে পারেনা আমি ঘেন্না করি যে সন্তান পিতা-মাতার ভালোবাসাকে বুঝতে পারে না আমি তাদেরও ঘেন্না করি যে কবি বুদ্ধিজীবী তকমা নিয়ে সরকারের তোষামোদি করে আর নিক্তিতে ওজন হয়ে যায় আমার প্রিয় শব্দেরা আমি ঘেন্না করি

Read More »

আমার নীরবতা আমার ভাষা – অমিতাভ দাশগুপ্ত

আমার হাতে কোনও শাবল ছিল না, বাটালিও নয়, তবু, এতদিন তিলে তিলে গড়ে তোলা দুর্গ এক দুপুরের বৃষ্টিতে কীভাবে ধুয়ে গেল! আর ওই বিশাল পাথুরে অবরোধ-ই যে আড়াল করে রেখেছিল হার্মাদের মত এক খ্যাপা নদী,

Read More »

এই মৃত্যু উপত্যকা আমার দেশ না — নবারুন ভট্টাচার্য

যে পিতা সন্তানের লাশ সনাক্ত করতে ভয় পায় আমি তাকে ঘৃণা করি- যে ভাই এখনও নির্লজ্জ স্বাভাবিক হয়ে আছে আমি তাকে ঘৃণা করি- যে শিক্ষক বুদ্ধিজীবী কবি ও কেরাণী প্রকাশ্য পথে এই হত্যার প্রতিশোধ চায় না আমি তাকে ঘৃণা করি-

Read More »

চোখের জল — সুবোধ সরকার

  মানুষের চোখ থেহে গড়িয়ে পড়া চোখের জল ভালো লাগে না আমার সবচেয়ে বড় অপচয়ের নাম চোখের জল অসহ্য, সরিয়ে নাও তোমার চোখ, আমি তাকাব না খেতে দিতে না পেরে বাবা চলে গেলেন, মেঘলা আকাশ

Read More »