Srijato

ডাক – শ্রীজাত

ভাষা আমার শরীর। যেমন আকাশ মাটি জলও –
তারও আছে শিকড়, তুমি ফুলের কথাই বলো।

‘অ’ বললে তাই অহং বুঝি, ‘আ’ বললে তাই আদর
আমার ভাষায় বসত করে অজস্র বেরাদর।Read More »ডাক – শ্রীজাত

গাছ – শ্রীজাত

মৃত্যু সেজে দাঁড়িয়ে আছে মুখনিচু এক গুরুত্বহীন গাছ
হাত রাখো তার বুকের কাছে, দেখতে পাবে আলো-গহীন গাছ।

ঘোড়ারা সব মৃত এখন, প্রান্তরে এক চাঁদ দাঁড়িয়ে চুপ…
আমার মতো একলা ঘরে কেউ বুঝি আর শোনে মহীন, গাছ?Read More »গাছ – শ্রীজাত

জন্মদিনের ফুল – শ্রীজাত

কখনও লাস্য, কখনও লড়াই তুমি।
ভেঙেছিলে মিথ, মিথ্যের কারিগরি
অক্ষর স্থায়ী। কলমেরা মরসুমি।
আমরা এখনও তোমারই কবিতা পড়ি।Read More »জন্মদিনের ফুল – শ্রীজাত

ঈশ্বর – শ্রীজাত

তোমাকে ঈশ্বর মেনে আমার হয়েছে যত জ্বালা।
যক্ষ হয়ে ঘুরে মরছি একই মহল্লায় সারারাত
জেগেছে সরাইখানা, দূরে দূরে ম্লান পান্থশালা…
প্রতিটি অক্ষর আজও জাতিস্মর কিতাবে মলাট।Read More »ঈশ্বর – শ্রীজাত

অন্ধকারের গান – শ্রীজাত

এই যুদ্ধের দিনগুলো পেরিয়ে যেতে
তুমি বন্ধুর মতো কিছু সাহস দিও
ওই সঞ্চয় ফলে আছে সময়ক্ষেতে
সেই শস্যের রং আজও অতুলনীয়Read More »অন্ধকারের গান – শ্রীজাত

রোদ আর খড়কুটো – শ্রীজাত

সকালে এনেছি রোদ আর খড়কুটো।
আমার খাতায় সকাল যেভাবে হয়।
সময়ের কাছে হেরে গেছি খুব দ্রুত…
তুমি তো আমার কবিতায় পাওয়া জয়।Read More »রোদ আর খড়কুটো – শ্রীজাত

সময় নাও – শ্রীজাত

মৃত্যু নিয়ে লিখতে গিয়ে অসাড় হওয়া হাত
বাড়িয়ে দেব তোমায়। তুমি পাওনি সাক্ষাৎ
পীড়াবরণ ফুলের। তাই মুখে অমন ঋণ
জাগিয়ে রাখা সম্ভবও, যে মুহূর্তে রঙিন Read More »সময় নাও – শ্রীজাত

প্রশ্ন যদি ফিরিয়ে নিই – শ্রীজাত

‘আর কতদিন আছেন?’ ওঁকে জিগ্যেস করেছি।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে, দূরের কোনও মেলায়
হঠাৎ দেখা। শীতের সন্ধে নামছে কি নামেনি,
এমন সময় মঞ্চে এলেন অলোকরঞ্জন।Read More »প্রশ্ন যদি ফিরিয়ে নিই – শ্রীজাত

মানুষটা – শ্রীজাত

মানুষটাকে দেখিনি, তবু জানতে পারি স্বপ্নে
কাঙাল ছিল অনেকখানি, কিছুটা রক্তাক্ত

বহ্নি ছিল পোষ মানানো, ঝড়ের মুঠি আলগা
বাজারগামী রাস্তা জুড়ে একলা বসে থাকত।Read More »মানুষটা – শ্রীজাত

গ্রীষ্ম – শ্রীজাত

এমন শুয়েছ, যেন অতীতের কাচ…
রোদে ভেসে থাকা মুখ, তুলে নিলে ছাঁচ।
কী হবে বিপ্লব তাতে? হবে কি বিদ্রোহ?
ভালবাসা কিছু নয়। বিষাদের মোহ।Read More »গ্রীষ্ম – শ্রীজাত

গৃহবন্দির লেখা – শ্রীজাত

অল্প আঁচে ভাত নামালাম। ডালে ফোড়ন দিও।
এর বেশি তো চায় না কিছু এ গৃহবন্দিও।

খুঁজেছে মন চিঠির হদিশ, ঘুমোলো খাম ভাঁজে…
তারিখ উধাও। প্রহর চিনি ললিতে, খাম্বাজে।Read More »গৃহবন্দির লেখা – শ্রীজাত

দু’জন মেঘের কবিতা – শ্রীজাত

ছাইরঙা দুই মেঘে কানাকানি,
বৃষ্টির দিনে কী সৌহার্দ্য-

মুঠো ধরে তারা এগোচ্ছে, যেন
পিকাসোর পাশে ব্রিজেট বার্দ্যো।Read More »দু’জন মেঘের কবিতা – শ্রীজাত

চাল – শ্রীজাত

নিকিয়ে নিয়েছি ভাতের থালার দাওয়া
এক কোণে শেষ চালটিও প্রত্যাশী,
ধানক্ষেতে এল দুঃসময়ের হাওয়া…
আমরা সকলে সময়ের ভাগচাষী।Read More »চাল – শ্রীজাত

সমাধি – শ্রীজাত

এমন বৃষ্টিতে চিঠিরা পরপর সমাধি চায়।
যেখানে কেউ নেই, গাছেরা মনে রাখে স্মৃতিবিদায়,
সেখানে বৃষ্টিতে চিঠিরা পরপর সমাধি চায়।Read More »সমাধি – শ্রীজাত

পান্থ – শ্রীজাত

এমন কোনও পন্থা হয়, যেখানে তুমি ঠিক?
দাঁড়িয়ে ছিলে ফিরবে ব’লে, হারিয়ে গেছে দিক।

সকাল থেকে মুষলধার, বিষাদবর্বর
ফেরার কথা ভুলিয়ে দিল, যাদের ছিল ঘর
দিনের নাম বদলে দেয় পাহাড়সৈনিক –Read More »পান্থ – শ্রীজাত

উপহার – শ্রীজাত

আমাদের বাড়ি আজ রবি ঠাকুরের জন্মদিন।
পায়েস হয়নি বটে, আয়েসেরও উপায় আছে কি?
কুঠুরিতে বন্দি থেকে বয়ে যায় বেলাটি রঙিন –
যে যত কাছের লোক, তাকে তত দূর থেকে দেখি…Read More »উপহার – শ্রীজাত

রবিদা ও বাঁকে সিং – শ্রীজাত

রবিদা’র কাছ থেকে মুড়ি খাই আমি।
বিহারের বাঁকে সিং হজমি বেচেন।
শহরের সব পথ অবসাদগামী,
রবিদা ও বাঁকে সিং কোথায় গেছেন?Read More »রবিদা ও বাঁকে সিং – শ্রীজাত