কোথায়ও আর কোন নবান্ন নেই – তাপস ঠাকুর

1
64

বলতে পার- আর কত রক্ত পাত হলে
এই পৃথিবী উর্বর হবে ?
আর কত শিশু ধর্ষিত হলে
এই পৃথিবী সভ্য হবে ?
বলতে পারো কেউ ?

ঐ লাখ জনতার মঞ্চ কাঁপিয়ে যে নেতা
একের পর পর বকৃতা দিয়ে যাচ্ছে !
তার কাছে জানতে চেয়েছি-
কবে বৃষ্টি হবে ?
ফসলের মাঠ ফেঁটে চৌচির হয়ে যাচ্ছে-
পৃথিবীর কোথায়ও আর কোন নবান্ন নেই-
অথচ সেই নেতা জানে না –
বৃষ্টির খবর !!

কোন বড় পত্রিকার সম্পাদক-
টকশোতে ঝড় তোলা বুধিজীবী-
সেও জানে না-
বার্ন ইউনিটে কেন এত ভিড় ?
কেন মানুষ পোড়া গন্ধে
বাতাস বিষাক্ত হয়ে উঠছে প্রতি মুহূর্তে ?
মানবতা আর মূল্যবোধ যেন পুড়ে খাক হয়ে গেছে !!

ধর্মকে প্রশ্ন করলে বলে-
কলিকাল-অতপর মহাপ্রলয় হবে !!

বৈজ্ঞানিকক বলছে-
হোক- না –! এই সোলার সিস্টেমের বাইরেও আরো অসংখ
গ্রহ-নক্ষত্রপুঞ্জ রয়েছে –!
জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এর মাধ্যমে মানুষের শরীরকে
এমন ভাবে তৈরি করা হবে –
যেন সে মহাশূন্য গিয়ে থাকতে পারে !!

তবু সেখানেও যদি নানা গোত্রের ধর্ম আসে-
কারো বর্ণ সাদা –অথবা কারো বিবর্ণ হয় !
যদি আবার প্রেম পরিণত হয়
হিংসা আর লালসায় !

হে আমার মানুষ কবি –
আমাকে এক ভিন্ন গ্রহ উপহার দাও-
যেখানে জীবনের তীর্থ হবে –‘’শস্যপূর্ণ ফসলের মাঠ
প্রতিটি হৃদয়ে হবে নবান্নের উৎসব ’’ !

কবিতা ককটেল
কবিতা ককটেল বাংলা সাহিত্যের একটি অমূল্য সম্পদ। নবীন ও প্রবীণ সকল লেখকের লেখাই এখানে প্রকাশ করা হয়। ২০১৪ সনে আত্মপ্রকাশ করে কবিতা ককটেল সকলের প্রিয় হয়ে উঠেছে।