জোর জমিয়াছে খেলা – কাজী নজরুল ইসলাম

জোর জমিয়াছে খেলা!

ক্যালকাটা মাঠে সহসা বিকালবেলা।

এই জনগণ-অরণ্যে যেন বহিত না প্রাণবায়ু,

শিথিল হইয়া ছিল যেন সব স্নায়ু!

সহসা মৌন-অরণ্যে আজ উঠেছে প্রবল ঝড়,

ভিড় করে পাখি নীড় ছেড়ে করে কোলাহল-মর্মর।

জমাট হইয়া ছিল সাগরের জল,

সহসা গলিয়া ছুটিল স্রোতের ঢল।

ময়দানে জোর ভিড় জমিয়াছে বড়ো ছোটো মাঝারির,

স্বদেশি বিদেশি লোভী নির্লোভ হেটো মেঠো বাজারির!

এই দিকে ‘রাজি’,​​ ওদিকে ‘নারাজি’ দল,

সেন্টারে পড়ে আছে ‘ভারতের স্বাধীনতা’-ফুটবল!

রাজি’ জয়ী হবে বলে বাজি রাখে মজুর ও বিড়িওয়ালা,

কেল্লার ধারে জমায়েত হয়ে বাঁধা রেখে ঘটি থালা।

কাহার কেল্লা ফতে হবে সবে কয়,

রাজি’রা খেলিতে জানে,​​ উহারাই জয়ী হবে নিশ্চয়।

গ্যালারি’ ভরতি মধ্যবিত্ত আধা-বড়োলোক যত,

ছাতা উঁচাইয়া ‘রাজি’দের জয়ধ্বনি করে অবিরত।

নারাজি’ দলের ‘সাপোর্টার’ যত কোট প্যান্ট চাপকান,

সংখ্যায় সাত কুড়ি,​​ তবু তিন হাত তুড়িলাফ খান!

এরা খায় বিড়ি,​​ ওরা খায় সিগারেট,

এরা খায় চানাচুর ও বাদাম,​​ ওরা চপ কাটলেট!

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ জোর জমিয়াছে খেলা,

বুট-পরা পায়ে ফুটবলে লাথি মারে,​​ হুল্লোড় মেলা!

খাইয়া ‘ফাউল-কারি’ ‘নারাজি’রা কেবল ফাউল করে,

রেফারিকে দেয় কাফেরি ফতোয়া যদি সে ফাউল ধরে!

শেম’ ‘শেম’ বলে জনগণ,​​ হ্যাটুয়ারা দেয় হ্যাটে তালি,

খেলতে পারে না,​​ ফেলিতে পারে না ঠেলা দিয়ে,​​ দেয় গালি।

কোন দল জেতে কোন দল হারে,​​ উঠিয়াছে কোন্দল,

নারাজি’র দিকে বুড়োরা, ‘রাজি’র জোয়ান নতুন দল।

 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ উঠেছে হট্টগোল

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ ওই দিল – গোল,​​ গোল!

মটরুর নানা দেড় চোখ কানা,​​ ঝুড়ি তুলে মারে কিক,

লুঙ্গি ধরে চলে ‘রাজি’রা এবার গোল দিল দেখো ঠিক!

নারাজি’রা হল যেন আলু-ভাজি,​​ করে শুধু হ্যান্ডবল,

যত গোল খায় তত গোলমাল করে তারা অবিরল!

কবুতর ওড়ে,​​ মোগলি লম্ফ মারে বগলের ছাতা,

জয় রাজি’ বলে ওড়ায় রঙিন কুচি কাগজের পাতা।

 ​​​​ 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ খেলা জমিয়াছে জোর,

নারাজি’রা রাগে, ‘রাজি’রা ততই হাসিয়া করে স্কোর!

নারাজি’র দলে বিদেশি খেলুড়ি, ‘রাজি’র দেশের ছেলে,

রাজি’রা পায়ের জোরে খেলে ‘নারাজি’রা গা-র জোরে ঠেলে।

আজও খেলা শেষ হয় নাই ময়দানে,

হাফটাইমের’ আগেই কে গোল খেয়েছে সবাই জানে।

 ​​​​ 

এরই মাঝে আসিয়াছে ঘনঘটা রুক্ষ আকাশ ঘিরে,

কারা যেন ক্রোধে নীল আশমান বিজলি-নখরে চিরে!

বাজে বাদলের মাদল ঝাঁজর মৃদঙ্গ গুরুগুরু,

মাথার উপরে ছাতার তাম্বু,​​ বৃষ্টি হয়েছে শুরু!

দর্শক দ্যাখে,​​ এঁকেবেঁকে পড়ে মাঠে কারা পিছলায়ে,

রাজি’ দল ছোটে তিরের মতন চাকা বাঁধা যেন পায়ে!

 ​​​​ 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ খেলা জোর জমিয়াছে,

দর্শক সব এবার এগিয়ে এসেছে দড়ির কাছে।

বৃষ্টি নেমেছে,​​ এবার দৃষ্টি প্রখর করো রে দাদা,

কার দিকে কত হয় সে ফাউল,​​ কে ছিটায় কত কাদা।

 ​​​​ 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ খেলা দ্যাখো,​​ দ্যাখো খেলা,

রাজি’ কি ‘নারাজি’ জয়ী হল,​​ বলো তোমরাই সাঁঝ-বেলা!

কবুতরগুলি ফেরে নাই ঘরে,​​ ঘুরিছে মাথার পর,

কাহারা জিতিল,​​ দেশে দেশে গিয়া শুনাবে খোশখবর!

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।