সম্মোহন

0
19

শহরের রাস্তায় মুখ থুবড়ে পড়ে থাকে কামুক মধ্যরাত
সঙ্গমের নেশায় মত্ত চাঁদের আলো নেমে আসে চুপিচুপি,
মেঘেদের কানাকানি অবজ্ঞা করে রাত্রিতে মিশে যায় রুপোলি জোৎস্না———–
গাছের ফাঁক থেকে এক পেঁচা নীরবে উঁকি মারে,
নৈসর্গিক মিলনের আনন্দ উপভোগ করে স্বমেহনে।
উন্মাদনা ছড়িয়ে পড়ে প্রতিটি আগ্নেয়গিরিতে
দূর থেকে ভেসে আসে কুহকের ডাক,
ঘুমন্ত শিশুর মুখের মতো কোমল সোহাগ ঝরে পড়ে সেই ডাকে।
সারা রাত জুড়ে নক্ষত্ররা সাক্ষী থাকে এ আদিম সুন্দরের।
তবু কোথাও কোনো এক অন্ধকারে
বিষাদ কালো এক না পাওয়ার ক্ষত বুকে কোনো এক নারসিস্ট কবি উষ্ণ লাভা স্রোতে লিখে চলে মৃত্যুর কবিতা।