শুরু করি লয়ে শুভ নাম আল্লার,
যিনি দয়াশীল আর কৃপার আধার।

শপথ করি এই নগরের

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ যেহেতু বিরাজ করিছ হেথায়

শপথ পিতার আর তাহাদের সন্তানের

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ অধিবাসী এই নগর মক্কায়।

মানুষে করেছি সৃষ্টি যে আমি

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ নিশ্চয় দুঃখ-ক্লেশের মাঝ,

সে কী ভাবে,​​ তার পরে প্রভুত্ব

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ করিতে কেহই নাহি সে আজ?

উড়ায়ে দিয়াছি রাশি রাশি টাকা

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ আমি’ – সে বলে বিনাশিতে তোমারে,

সে কি (এই শুধু) মনে করে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ কেহ দেখিতেছে না তাহারে?

আমি কি তাহার মঙ্গল লাগি

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ দিইনি তাহারে যুগল নয়ন?

জিহ্বা ওষ্ঠ দিইনি?​​ দেখায়ে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ দিইনি উভয় পথ সে কারণ?

কিন্তু প্রবেশ করিল না তো সে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ দুর্গম পথে উপত্যকার,

উপত্যকার দুর্গম সেই

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ পথ – জান তুমি সন্ধান তার?

সে পথ – দাসেরে মুক্তিদান

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ ও অন্নদান সে ক্ষুধার্তেরে

আশ্রয় দান ধূলি-লুণ্ঠিত

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ কাঙালে, ‘এতিম’ আত্মীয়েরে।

এমনি করে সে হয় একজন

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ তাদের মতোই,​​ ইমান যারা

আনে আর দেয় উপদেশ

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ সব বিপদে (মহৎ তারা)।

উপদেশ দেয় পরস্পরে সে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ দয়াশীল হতে,​​ তারাই হবে

দক্ষিণকর অধিকারী। আর

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ এ আয়াতে অবিশ্বাস করে গো যারা – হবে

বাম হস্তের অধিকারী তারা,​​ তাদের তরে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ আছে নিবদ্ধ হুতাশনের বরাদ্দ রে।

সুরা বালাদ্
এই সুরা মক্কা শরিফে অবতীর্ণ হইয়াছে। ইহাতে ২০টি আয়াত, ৮২টি শব্দ ও ৩৪৭টি অক্ষর আছে।

শানে-নজুল – কালদা নামক বলিষ্ঠ কাফেরকে হজরত মোহাম্মদ (দঃ) ইসলাম গ্রহণ করিতে বলায় সে অবজ্ঞাভরে বলিয়াছিল যে, দোজখের ১৯জন ফেরেশতাকে সে একা বাম হস্তে অবরোধ করিতে পারিবে; বেহেশ্‌তের বাগিচা, নহর ও মণিকাঞ্চনের মূল্য তাহার বিবাহাদি উৎসবে ব্যয়িত অর্থের তুল্য হইতে পারে না। তখন এই সুরা নাজেল হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।