নতুন কবিদের কবিতা

ইন্দ্রাণীকে লেখা চিঠি (প্যারোডি) – নির্মাল্য সেনগুপ্ত

ইন্দু সোনা,
তোমার দেখা পাচ্ছি না তাই, এ চার রাতে
বুকের উপর বাজ পড়েছে আশ্বিনের।
মদের দোকান টানছে জামা, তবুও বুকে চাপিয়ে কামান
চোখ রেখেছি এক নাগাড়ে লাস্ট সিনে।Read More »ইন্দ্রাণীকে লেখা চিঠি (প্যারোডি) – নির্মাল্য সেনগুপ্ত

সারাকাল বৃষ্টি – সুনীতি দেবনাথ

পরিত্যক্ত বিকেলে একটি ঝাঁক বৃষ্টি
হুড়মুড় করে ঝাঁপিয়ে পড়লো এসে।
সাত তাড়াতাড়ি গোধূলি রঙবাহার
পাহাড়ি আলখাল্লায় লুকিয়ে পড়লো,
পাহাড় জবুথবু যেন জানে না কিছু।
এবার বৃষ্টি কেবল বৃষ্টি ঝমাঝম —Read More »সারাকাল বৃষ্টি – সুনীতি দেবনাথ

প্রজন্ম – সুনীতি দেবনাথ

ইউক্যালিপটাসের সরু দীঘল পাতা পিছলে
সকালের চৈতী রোদ্দুর ছলকে ঝাঁপিয়ে পড়লো
টংঘরের দুয়ারে চিত্রার্পিত ধনবতী রিয়াংএর পেটে।
চার চারটে সুদীর্ঘ দিন রাত নৌকো বেয়ে পার হলো
ফেরেনি মরদ চাল নিয়ে উপরের লুসাই বস্তি থেকে,Read More »প্রজন্ম – সুনীতি দেবনাথ

চে গেভারা – সুনীতি দেবনাথ

এবং তাঁকে হত্যা করা হল—
লা ইগেরার ছোট্ট স্কুল ঘরে
পাহাড় অরণ্যের যুগলবন্দীর মাঝখানে।
হত্যাকারী রেঞ্জার ছদ্মবেশী তিন অফিসার
সাম্রাজ্যবাদীর তল্পিবাহক আর এক সি আই এ এজেন্ট।Read More »চে গেভারা – সুনীতি দেবনাথ

দহনবেলা – সুনীতি দেবনাথ

প্রেমে স্বাচ্ছন্দ্যে বৈভবে থেকেও দেখেছি
কোন আগুনে না পুড়েও বুকে ছিল তাঁর
অনির্দেশ্য অনির্বচনীয় কোন এক দহনজ্বালা
তাই হঠাৎ রাতের আঁধারে নাক্ষত্রিক আকাশেRead More »দহনবেলা – সুনীতি দেবনাথ

ফসল – হরেকৃষ্ণ দে

তোর হাতটা একবার দে,
তোকে এনে দেব
পা পা চো চো করা একটা
সকাল।
লাল ববি প্রিন্টের
বর্ডারে লিখে দেব
বাল্যের দুষ্টুমি গুলো।Read More »ফসল – হরেকৃষ্ণ দে

কালপুরুষ – সুনীতি দেবনাথ

কোন্ যুদ্ধের প্রস্তুতি নিয়েছ তুমি
হে কালপুরুষ! কালের অতন্দ্র প্রহরী!
সেজেছো কী অদ্ভুত অলৌকিক সাজে,
তোমার ভয়াবহ প্রস্তুতি কাঁপিয়ে দেয়
আমাকে আমার লৌকিক এই জগতকে,
বিড়ম্বিত অস্তিত্ব নিয়ে আমি রুদ্ধশ্বাস!Read More »কালপুরুষ – সুনীতি দেবনাথ

কবিকে দুঃখ দিওনা — মাহ্ফুজ রাজন

কবিকে দুঃখ দিওনা হে নারী
লঙ্কাকাণ্ড ঘটিয়ে দিতে পারে সে,
রটিয়ে দেবে গ্রহ, নক্ষত্রে
গ্রামে, গঞ্জে, শহরে, বন্দরে।
এগুতে পারবেনা এক পা’ও
পেছানোরও পথ বন্ধ পাবে।Read More »কবিকে দুঃখ দিওনা — মাহ্ফুজ রাজন

এলোমেলো প্রেম – মাহ্ফুজ রাজন

( ১ )
আকাঙ্ক্ষার ঝুল বারান্দায়
যখন দেখা হয় রোজ,
মেয়েটি হয়ে যায় কিশোরী
আর ছেলেটি
চল্লিশ বছরের কিশোর।।Read More »এলোমেলো প্রেম – মাহ্ফুজ রাজন

স্মৃতি রোমন্থন – মাহ্ফুজ রাজন

মনে পড়ে
সূর্যাস্তের এক বিকেল বেলায়
একজোড়া হাত আমায় ছুঁয়ে বলেছিল,
ভুলে যাবেনাতো ?
আমি মৃদু হেসে বলেছিলাম,
ভালো যে বাসেনা সে তো
চোখের তারায় সন্ধেহের ছবি আঁকবেই।
অমনি তুমি
গোমড়া মুখে পেছন ফিরেছিলে।
কারণ, তুমি জানতেRead More »স্মৃতি রোমন্থন – মাহ্ফুজ রাজন

নারীর জন্য পংক্তিমালা (২) — মাহ্ফুজ রাজন

ও মেয়ে, তুমি অমন কাঁদো কেন ?
রচনা করো কেন অমন
দুঃখী নিঃশব্দের কবিতা ?
তোমার একেকটি কান্নার মুহূর্ত
বিষন্ন করে তোলে চারধার ,
প্রকৃতির বেহালায় বাজে যেন
দূর অতীতের কষ্টের সুর।Read More »নারীর জন্য পংক্তিমালা (২) — মাহ্ফুজ রাজন

নারীর জন্য পংক্তিমালা (১) — মাহফুজ রাজন

একটি নারী –
হতে পারে সে স্মৃতিকণা, সীমা
জোস্না অথবা অরুণিমা,
কীইবা যায় আসে তাতে,
নারী সে, কেবলি নারী।
জল্লাদ বাহিনীর পদচারনা
যার চতুর্দিক ঘিরে Read More »নারীর জন্য পংক্তিমালা (১) — মাহফুজ রাজন

সম্পর্ক – রামকৃষ্ণ প্রধান

একদিন ভোরে উঠে দেখি
মুছে গেছে রক্তের ডোর
আর একদিন ছোট ছোট স্নেহের বাঁধন
প্রাচীন অথচ এই নবীন স্বার্থ
বাস করে সম্পর্কের অনুভূমিক তলে ।
গলা জড়িয়ে চুমু দেয় প্রেম Read More »সম্পর্ক – রামকৃষ্ণ প্রধান

দেশ খোঁজা মানুষ – রামকৃষ্ণ প্রধান

তৃতীয় বিশ্বের এক কবি পড়ন্ত বিকেলে
নতুন ভাড়াটের সাথে খোশ গল্প করছে
এই পৃথিবীতে যাদের দেশ নেই
তাদের জন্য ফুলে ফুলে উঠছে চিন্তন কোশগুলি
হৃদয়ের নীল স্পন্দনে রোহিঙ্গাদের ঘর
কফির তলানিতে ঠেকেছে । Read More »দেশ খোঁজা মানুষ – রামকৃষ্ণ প্রধান

সারোগেসি – রামকৃষ্ণ প্রধান

আমার মা বাবার মধ্যে
খদ্দের আর দোকানদারের সম্পর্ক
একে অপরকে ভালোবাসেনি কখনো ।
বেশ্যারা শরীর বেচে ক্ষনিকের জন্য
আমার মা শরীর, মন বেচেছিল
পুরো দশমাস দশদিনের জন্য । Read More »সারোগেসি – রামকৃষ্ণ প্রধান

ভালবাসা – পরিজিৎ মিদ্যা

ভালোবিছানার প্রতি ভাঁজে
লালসা নগ্ন সাজে
শরীরে জাগে কত ভাষা।
রাত এলে হয়রানি
দেয় যৌনতা হাতছানি
এটাই নাকি ভালবাসা।Read More »ভালবাসা – পরিজিৎ মিদ্যা

লহ প্রণাম – জয়া গুহ (তিস্তা)

রাত জেগে আছে ভোরের আলিঙ্গনে
প্রিয়ার আঁচল রক্তের অভিমানে
হে বীরচক্র প্রণাম তোমায় ছুঁয়োনা কারুর হাত
মৃত্যুর সাথে নব পরিচয়ে প্রেমের সংঘাতRead More »লহ প্রণাম – জয়া গুহ (তিস্তা)

দলিত – সুপ্রতীম সিংহ রায়

বাতাসে ভাসে উচ্চবর্ণ হাওয়া
উঠোন জুড়ে সংখ্যালঘু ফুল,
এক দেশে,এক সুরে গান গাওয়া
“নীচ তুমি”-এটাই তোমার ভুল।

ছড়িয়ে পড়ছে ধর্ম ধর্ম গন্ধ
বর্ণভেদে ভাঙছে একটা সমাজ,Read More »দলিত – সুপ্রতীম সিংহ রায়

শীত পার্বণ – সুপ্রতীম সিংহ রায়

ঝিলমিল শেষে সব একাকার
হিমেল হাওয়ায় বরফ জোগায়,
শীতঘুম আর কুয়াশা পরশ
উৎসব দিন নিভৃতে ঘুমায়।

পৌষের ভোর হিম হিম ভাব
লেপ মোড়া রাত দমকা আদর,
মাফলারে মুখ ঢাকা পড়ে যায়
বাড়তি গায়ে পশম চাদর।Read More »শীত পার্বণ – সুপ্রতীম সিংহ রায়

শীতবিলাস ও বান্ধবীস্কার্ফ – টুটুল দাস

বান্ধবীদের কফির কাপে পৌষ বিকেলের ছায়া
দাস্তানাতে নাক ঢেকেছে, কুয়াশা দিয়ে মায়া।
সন্ধ্যেগুলো বিষমখাওয়া ভীষণ এলোমেলো
কবিকে ছোঁয়ার ভান করে সব আঁধার ছুঁয়ে গেল।
আঁধার মানে মফঃস্বলের রেডিও বাজা রাত
মেসেজ বেয়ে চুইয়ে নামে শীতঘুম অকস্মাৎ। Read More »শীতবিলাস ও বান্ধবীস্কার্ফ – টুটুল দাস

নীল – সৃজা ঘোষ

জ্বরের মত সুন্দর উষ্ণতা চাই।
রুঘ্ন ঠোঁটের ভেতর ভেতর ক্লান্ত তবু,
চুম্বনে অরুচি নেই…
দুদিন হল স্নানহীন।
আদরে গা ভেজাও, Read More »নীল – সৃজা ঘোষ

প্রতীক্ষালয় – ইন্দ্রজিৎ দত্ত

দেরীতে ঘুম ভাঙা সকালের চাদরটা ধীরে সুস্থে সরিয়ে ফেলতেই জানলা পেরোনো চোখ দুটো আকাশে। কুচি কুচি মেঘ। প্রথম সঙ্গমের মত একে অপরের গায়ে উঠে পড়তে চাইছে। ছুঁয়ে দিচ্ছে অকারণ ব্যস্ততা। যেমন বস্তির শিশিবোতলওয়ালা প্রতিদিনের পকেট থেকে কিছুটা সরিয়ে রাখে সঞ্চয়। তড়িঘড়ি। যদি আর সূযোগ না আসে। যদি আর না পাওয়া যায় এভাবে।Read More »প্রতীক্ষালয় – ইন্দ্রজিৎ দত্ত

জিজ্ঞাসা একটাই – মোনালিসা

গ্রামের ও গ্রামের প্রতিটি মানুষের-
বর্ষার ছাতা, শীতের কম্বল, গরমের মুক্ত হাওয়া;
আর ঝড়ের মুখে প্রকাণ্ড এক দেওয়াল-
বরুন বিশ্বাস…Read More »জিজ্ঞাসা একটাই – মোনালিসা

ওরা – মোনালিসা

ওরা স্বপ্নের অঙ্কুর দেয় উপহার;
বিনিময়ে বানায় হাতের পুতুল।
অঙ্কুরটা যখন বড় গাছ,
স্বপ্নগুলো বিক্রিত;
বিনিময় কঙ্কালসার গাছের ভার।
স্বপ্ন-মূল্য ওদের আখেরে…Read More »ওরা – মোনালিসা

কে আমার তুই ? – মোনালিসা

অহর্নিশি উন্মাদময় স্বপ্ন তুই;
মাঝরাত্তিরে ঝিঁঝিঁ পোকার শব্দটাকে ছাপিয়ে দিয়ে
মোবাইলে বেজে ওঠা রিংটোন তুই ।
মনের মাঝে বৃষ্টি এলে ভরসা তুই,
মন খারাপের দিনগুলোতে সান্ত্বনা তুই;
অদ্ভুত এক মন মানেনা পাগলামি তুই,Read More »কে আমার তুই ? – মোনালিসা

নতুন বছর – মোনালিসা

২০১৩’র মতোই সূর্য ওঠে, সন্ধ্যে হয়;
বাধ্য হয়ে মিথ্যে বিজ্ঞাপন ধারন করে
দেওয়াল গুলো,
কয়েক মিটার দূরে দূরে দাঁড়িয়ে থাকা
বোবা ল্যাম্পপোস্ট গুলো
গাল কুড়োয় ইলেক্ট্রিসিটিহীন বাসভূমির;Read More »নতুন বছর – মোনালিসা

বৈপরীত্য – মোনালিসা

জ্বর গায়ে কেঁপে কেঁপে ওষুধ এনে দিতে বলি । পৌষের শীত; তাই ও যেতে পারবেনা বলে… আমি কাঁপি রপ্তহীন জ্বরে আর শব্দহীন শব্দের ঝাঁকুনিতে; ও… Read More »বৈপরীত্য – মোনালিসা