প্রথম পাতা প্রচ্ছদ পাতা 2

কথা দিলাম- নাসির আহমেদ কাবুল

একটি ফুল দেবে? একটি গোলাপ রক্তলাল টকটকে— ভোরের শিশিরে চুমোর দাগ গোলাপের শরীরে, দেবে? আমি তোমায় বিশ্বাস দেবো হাত ধরে থাকার প্রতিশ্রুতি দেবো পাশাপাশি হাঁটার অঙ্গীকার দেবো দেবে, লাল টকটকে...

খেলবো হোলি রং লাগাবো লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী

আগামীকাল দোলপূর্ণিমা। কবিতা ককটেল ব্লগের সাথে সংযুক্ত সকল লেখক কবিগণকে জানাই শুভ দোল পূর্ণিমার অগ্রিম প্রীতিঘন শুভেচ্ছা। দোল পূর্ণিমায় বসন্ত উত্সব জাতীয় জীবনে সর্বাঙ্গীন।...

প্রদীপখানি – শিবাশিস্ দাস

প্রদীপটা এখনও জ্বলছে.... চারিপার্শ্বের নীরবতাকে, সামান্য স্পর্শ করে জ্বলছে নিজের বুক পুড়িয়ে; হুহু করা ঠান্ডা বাতাসে লাপ-ডাপ করা হৃদয়ের ছন্দে জ্বলছে এখনও.... সলতে হয়ে গেছে ছোটো, ফুরিয়ে যাচ্ছে তেল; প্রাণশক্তিটুকু রয়েছে...

দৃষ্টিকোণ – শিবাশিস্ দাস

রঙভরা বাঁশির সুর আবির রাঙা শ্বেতপাথর তাজমহল, আর— সাদাকালো রঙমশাল। পথজোড়া ধ্বংসস্তূপ, বড়শী আর ল্যাম্পপোষ্ট ডাকপিওনের ঝুলিভরা, অনাহুত দৃষ্টিকোণ। ফুটপাত, কফিশপ, চায়ের ভাঁড়ের পোড়া দাগ প্রতিটি চুমুক থেকে পড়ছে ঝড়ে উষ্ণ...

একদিন আমি আকাশ হবো

একদিন আমি আকাশ হবো। বিশাল ব্যপ্ত আসমানী নীল পরত পরত - গভীর থেকে গভীরতর চুঁইয়ে পড়ে কালোর ভেতর শূন্যতাকে ছুয়ে নেবো, একদিন আমি আকাশ হবো, রং আর শব্দ পরিব্যাপ্ত সব মেঘেদের...

পৃথিবীতে “নারীর আলো” জ্বালাতে চাই- ইকরামুল শামীম

আমি অবলা নষ্ট পুরুষের বাহুতে দুর্বল, আমি উচ্ছিষ্ট আমি ধর্ষিত পুরুষের হিংস্র থাবায়, আমি নারী পুরুষের অর্ধাঙ্গিনী আমি মমতাময়ী তবুও পুরুষের শেকলে বন্দি, আমি নারী একটু আদর আর ভালবাসায় হই ভরপুর, সাজাই স্বপ্নের নীড় হারিয়ে যাই সংসার...

তোমাকে নিয়ে জিততে চেয়েছিলাম- নিখর তাবিক

আমি তাকে নিয়ে জিততে চেয়েছি, আর সে শুধু বাচতে চেয়েছে। অনেকেই তাকে বয়ুভর্তী ব্যাগ নিয়ে বাচাতে এসেছিল,জেতাতে পারেনি। আমি তাকে জেতাতে পেরেছিলাম, বাঁচাতে পারিনি। আমিও উন্মুখ হয়ে বসে ছিলাম জিতে...

এখানে অনেক লোকের ভীড়

এখানে অনেক লোকের ভীড়, বিশাল আয়োজন; তারই মাঝখানে দাঁড়িয়ে তোমায় খুঁজি- হয়ে অন্যমন।। বেলা বয়ে যায়, সময় হয়না ফিরে তাকাবার ; এখানে ভক্তেরা তোমায় আগলে রাখে বারবার।। দূর থেকে...

নিতম্ব-তরুন ইউসুফ

গোল্ডলিফের নিতম্বে আরামসে একটা দম দিয়ে লম্বা ধোঁয়া ছাড়তে ছাড়তে আয়েশি ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে ছিল মাহমুদ হোসেন। অফিসে ঢোকার প্রাক্কালে এই নির্দিষ্ট জায়গাটিতে দাঁড়ানো রোজকার...

তোমার গন্তব্যহীণ পথে- নিখর তাবিক

গন্তব্যহীন পথে অথবা বুনো দ্বৈরথে অপ্রাপ্ত মৃত্যু বেদনা তোমার। প্রচন্ড একক বর্বরতায়ও অতৃপ্ত অথবা ক্ষনিক তৃপ্ত তুমি। তোমার গন্তব্যহীন পথে, মুগ্ধতার রথে সহজেই নেমে আসে পোশাকী বালক পোশাক...

তোমার হাতের সাগর খানা

পান্না কিংবা আতরদানি, স্ফটিক পাত্র কিংবা কানের মুক্তোকণা-- ভাঙলে পরে ভেঙেই থাকে চোখের জল কি জুড়তে পারে ? ভাঙলে পরে ? কেন কুড়াও টুকরোগুলো? জমিয়ে...

রুদ্রাক্ষর-নিখর তাবিক

তোমার জন্য আমি নক্ষত্রতলে যাইনা বহুদিন। পাশ কেটে যাই যমুনাকেও। তোমার জন্য খবর রাখিনা কচুপাতার। মুক্তি দিয়েছি গিরিবাজ কবুতর। তোমার জন্য থামিয়ে দিয়েছি নাগিন বস করার বিনা। হাত বাড়াই...