শিরোনামহীন অষ্টম আদিত্য সরকার

0
3

আমাদের তবু কিছুটা ছিল শরৎ ভোরে শিশিরজলে পাঁ ভিজেছে
তোমাদের জন্য ভাবনা হয় বন্ধ ঘরের ইট পাথরের গল্প বেঁধেছে
আমাদের যাদের ঘর ছিল না প্রতিবেশী তবু জায়গা দিত নবজন্মে
তোমাদের এখানে নবজন্ম দেখা মেলে ফুটপাতে বা নর্দমাতে।

আমাদের তবু কিছুটা ছিল শোকের রোদন মানুষ জেনে
তোমাদের সময় মানুষের খবর পাওয়া যাবে প্রাণীকুলে
আমাদের তবু কিছুটা ছিল বাগান ঘেরা শখের ফুল
তোমাদের দশা শাহারা মরু ফসকে যাবে সবটি আঙুল।

আমাদের তবু কিছুটা ছিল বড়দের প্রতি সম্মান বোধ
তোমাদের কথা ভাবতে গেলে ভেতরে বাড়ে হিংস্র ক্রোধ
আমাদের তবু বাবা মা আছে স্বজন আছে খবরা খবর নেই
তোমাদের সময় আত্মকেন্দ্রিক সে অসুখে ভোগবেই।

আমাদের তবু কৈশর ছিল হৈ হুল্লোড়ে পাড়া মাতাতাম
তোমাদের সময় ডিজিটালের গুনছো জিবির কত দাম
আমাদের তবু আলোয় হাঁটা কেউ হাঁটতো অন্ধকারে
তোমাদের হাঁটা আর ভয়ানক মুখ ও মুখোশ সেজে গুজে।

আমাদের তবু যৌবন ছিল চায়ের কাপে কফির ধোঁয়ায় মতের প্রকাশ
তোমাদের সে সময় এলে অস্ত্র শানায় বাড়াবে ত্রাস কাড়বে শ্বাস
আমাদের হয়তো অল্প ছিল টানাটানিতে ধুকতে হতো তবু সুখ
তোমাদের এত অঢেল অঢেল তবু অভাব ভুগছো অসুখ।

আমাদের তো সাগর ছিল নদী ছিল জলের সাথে গল্প হতো
তোমাদের সময় এসব শুনে মনে হবে ভুত দেখেছো
আমাদের তবু শ্রদ্ধা ছিল স্নেহ ছিল পাপ পুন্যে ভয়
তোমাদের সময় যে বন্যদশা নখের আঁচড় হিংস্র হয়।

আমাদের তবু নোংরা নষ্টে মাথা কাটা যায় লাজে
তোমাদের সময় বলবে হেঁসে কি হয়েছে কিরে
আমাদের তবু উৎসব ছিল ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষ
তোমাদের সময় ভুলেই যাবে ধর্মের উদ্যেষ।