শিমুল গ্রামের ঝিমলি – অনির্বাণ

0
11

শিমুল গ্রামের ঝিমলি আমি ,
নেই কোনো আদর , নেই কদর!
ফক্কা মাদল আর কলসী নিয়ে তাই তো থাকতে হয় স্বামীর অনেক ভালোবাসার ঘরে।
স্বামী আমার নেহাত রাগী ,
কিন্তু ভালোবাসে অনেকখানি!
স্বামী আমার একটু দামী ,
তাই তো আমি বে – দামী …!
স্বামীর ঘরে তাইতো আমি চাকরাণী!
কিন্তু ভালোবাসে অনেকখানি!
স্বামী আমার প্রেমের ঢেউ ,
নেই কো তাতে কেউ …
স্বামী আমার দিনের আকাশ , রাতের শুকতারা ..
স্বামী আমায় যত্ন করে , দিয়ে একটা রুটি ,
না খেলেও প্রশ্ন করে মাছ টা তার কই?
হা হা হা ,
কিন্তু ভালোবাসে অনেকখানি!
স্বামী আমার হাতের পোড়া দাগ ,
সিগারেটের ছোঁয়া ,
অল্প ভাতে অনেক টা নুন আর বেশি টা তেতুলের জল,
তাও তো ভাবি কষ্ট হলে ,
চোখের জলে শুই।।
কিন্তু স্বামী আমায় —-
ভালোবাসে অনেকটাই।।
স্বামী আমার বড়ই দায়িত্ব বান পুরুষ ,
দায়িত্ব নিয়েই রাস্তার পথ দেখায় বার বার ..
না না সত্যি বলছি ,
স্বামী আমায় ভালোবাসে অনেকখানিই ..
মাঝরাতে কিছুটা ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়েই সে আমায় ভালোবাসে ..
কারণ আমি যে তার কেনা গোলাম!
তাই লাগাম টা টানলেই হলো …
আমি শুয়ে থাকি একলা বিছানায় ভোরবেলায়
পাতা বিহীন গোলাপের মতোই।।
তাই তো বলি , স্বামী আমায় ভালোবাসে অনেকটাই!
আমার হাত কাটলে ভালোবেসে জিজ্ঞেস করে “কতোদিন লাগবে সারতে? ”
আসলে আমার হাতের রান্না মাংস টা খুব পছন্দ করে কিনা সে …
আমার স্বামী আমায় খুব ভালোবাসে।

মানের ঘরের অভিমানী
চিনি গো তোমায় চিনি ,
মরুভূমির পিয়াসী আমি ,
তোমার কাছে ঋণী …
শিমুল গ্রামের ঝিমলি আমি
তোমার ঘরনী …