খরাতত্ত্ব বাবলু ভঞ্জ চৌধুরী

রাজা : হঠাৎ বৃষ্টি বন্ধ!
এমন শ্রাবণ মাসে?
কী বা কারণ বলো পন্ডিত
নইলে যাবে ফাঁসে।।
পন্ডিত : ম ম মরি ত্রাসে!
অমন কথা বলবেন না মহারাজ
এ তো সহজ সমাধান
কষেই করেছি অন্য কাজ।।
রাজা : তবে কপালে কেন ভাঁজ?
পন্ডিত : এ আমার সাজ
মহারাজ।
রাজা : ওতে নেই আমার কাজ
যাকগে ! ভীষন গরম আজ
বলো কী বা কারণ
কে করেছে বর্ষারে বারণ?
পন্ডিত : আজ্ঞে চরণ।
রাজা: চরণ?
পন্ডিত: করুন স্মরণ।
আপনার এ রাজ্যে
বিটকেল ছুঁচো আছে এক
নাম চরণ বাড়ুজ্যে।
রাজা: বাঁধ ভাঙছে ধৈয্যে
যা বলবে
বলো সহজে!
পন্ডিত: জি মহারাজে।
চৌদ্দজন্মে তারা কেউ
রাখত না ছাতা
রোদ বর্ষায় ভুগলেও।
রাজা : সর্দি জ্বরে মরলেও?
পন্ডিত: অত্যুক্তি হবে না বললেও।
সেই চরণ বাড়ুজ্যে দালালি করে
কিনল ছাতা, ভাঙল রেকর্ড
তিনশ বছর পরে।
তাতে আকাশ গেল রেগে
বলল তবে দাঁড়া
এখন থেকে থাকবি তোরা
বৃষ্টি বাদল ছাড়া।
রাজা : তবে দিই না কেন তাড়া?
সে কি আছে তল্লাটে?
পন্ডিত : জি হুজুর, আমার ফসকে যাওয়া ফ্ল্যাটে।
রাজা: বটে!
তবে এই কারণে খরা?
পন্ডিত: আজ্ঞে এটাই গেছে ধরা।

বাবলু ভঞ্জ চৌধুরী
জন্ম ৩০ এপ্রিল, ১৯৭৫, দক্ষিনশ্রীপুর, কালীগঞ্জ, সাতক্ষীরা, বাংলাদেশ। ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ-এ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর। প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ―'ভুতের শহর দেখা', শিশুকিশোর উপযোগী এই গ্রন্থটি ২০১৮ সালে একুশে বইমেলায় প্রকাশিত।