মেয়েমানুষের প্রেম – সৃজা ঘোষ

1
6

ঝিম ধরা স্রোতে পুরুষ তোমায়, শেখাবো প্রেমের নদী-
নয়া অভিঘাত শুষে নিতে হবে ‘ভালোবাসা’ নামে যদি।
এ দেহ আমার ভাঁটার গল্পে গতিহারা হত যেই,
কেউ বলেছিল- মেয়ে-মানুষের জোয়ার শিখতে নেই।।

মনুষ্য নয় জন্ম আমার, জড়তা জীবন ভোর
রাষ্ট্র আগেই ছিনিয়ে নিয়েছে নারীত্বের অক্ষর
অগ্নিগর্ভে জন্ম আমার মুখরতা পেতো যেই,
কেউ বলেছিল- মেয়ে-মানুষের দৃঢ়তা চেনাতে নেই।।

আগুন আমার মৃত যোনিপথ, আগুন আমার সই
কলজের ভারে তবু শতাব্দী ক্ষমাহীন, তীব্র-ই।
ধর্ষণে আর রক্তে, জীবন বাঁচবো বলেছি যেই…
কেউ বলেছিল- মেয়ে-মানুষের দীর্ঘায়ু হতে নেই।।

বাঁচতে চেয়েছি বিষ-মন্থনে, স্তন বিকিয়েছি ঘুনে
তবুও জন্ম বাকি রয়ে গেছে মৃত কন্যা ভ্রূণে…
আধুনিকতার একুশে তবুও যাপন চিনেছি যেই,
কেউ বলেছিল- মেয়ে মানুষের আকাশ দেখতে নেই।

আকাশ এখানে চোরাপথে বাঁচে- সোনার পাথরবাটি!
ভালোবাসা ছিটে বুক পুড়ে যায়। একলাটি পথ হাঁটি…
মুখ ঢেকে নেওয়া ‘অ্যাসিডের দায়’ চোকাতে চেয়েছি যেই,
কেউ বলেছিল- মেয়েমানুষের প্রকাশিত হতে নেই।।

চোকাতে চেয়েছি কালশিটে গুলো, চোকাতে চেয়েছি ঘাম-
বিষম বিবাদে মূক হয়ে যায় নষ্ট নারীর দাম।
বুক ঢেকে নেওয়া আভরণ-টুকু সরিয়ে দাঁড়াই যেই,
কেউ বলেছিল- মেয়েমানুষের দেবতা সাজতে নেই।।

1 মন্তব্য

  1. সৃজা, তুমি আমার প্রজন্মের নও। আমার বয়স প্রায় 55, জীবনের নানা ঘাত প্রতিঘাতে অনুভুতি গুলোও তত সংবেদনশীল নয়। কিন্তু তোমার কবিতাটি এক তীব্র কষাঘাতের মত, মনে হয় সমস্ত পুরুষের হয়ে ক্ষমা চাই তোমার এই কবিতার কাছে
    — বিভাস দত্ত