ওরে আমার বুকের বেদনা!

ঝঞ্ঝা-কাতর নিশীথ রাতের কপোত সম রে

 ​​ ​​ ​​ ​​​​ আকুল এমন কাঁদন কেঁদো না।

 

কখন সে কার ভুবনভরা ভালোবাসা হেলায় হারালি,

তাইতো রে আজ এড়িয়ে চলে সকল স্নেহে পথে দাঁড়ালি!

 ​​ ​​ ​​ ​​​​ ভিজে ওঠে চোখের পাতা তোর,

 ​​ ​​ ​​ ​​​​ একটি কথায় – অভিমানী মোর!

ডুকরে কাঁদিস বাঁধনহারা, ‘ওগো,​​ আমায় বাঁধন বেঁধো না’।

 

বাঁধন গৃহের সইল না তোর,

তাই বলে কি মায়াও ঘরের ডাক দেবে না তোকে?

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ অভিমানী গৃহহারা রে!

 

চললে একা মরুর পথেও

সাঁঝের আকাশ মায়ের মতন ডাকবে নত চোখে,

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ ডাকবে বধূ সন্ধ্যাতারা যে!

 

জানি ওরে,​​ এড়িয়ে যারে চলিস তারেই পেতে চলিস পথে।

জোর করে কেউ বাঁধে না তাই বুক ফুলিয়ে চলিস বিজয়রথে।

 ​​ ​​ ​​ ​​​​ ওরে কঠিন! শিরীষকোমল তুই!

 ​​ ​​ ​​ ​​​​ মর্মর তোর মর্মে ছাপা বেল কামিনী জুঁই!

বুকপোরা তোর ভালবাসা,​​ মুখে মিছে বলিস ‘সেধো না’।

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ আমার  ​​ ​​​​ বুকের বেদনা।

দৌলতপুর, কুমিল্লা
জ্যৈষ্ঠ ১৩২৮

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।