কত  ​​ ​​​​ ছল করে সে বারে বারে দেখতে আসে আমায়।

কত  ​​ ​​​​ বিনা-কাজের কাজের ছলে চরণ দুটি

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ আমার দোরেই থামায়।

 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ জানলা-আড়ে চিকের পাশে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ দাঁড়ায় এসে কীসের আশে,

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ আমায় দেখেই সলাজ ত্রাসে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ অনামিকায় জড়িয়ে আঁচল গাল দুটিকে ঘামায়।

 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ সবাই যখন ঘুমে মগন দুরুদুরু বুকে তখন

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ আমায় চুপে চুপে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ দেখতে এসেই মল বাজিয়ে দৌড়ে পলায়,

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ রং খেলিয়ে চিবুক গালের কূপে!

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ দোর দিয়ে মোর জলকে চলে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ কাঁকন হানে কলস-গলে!

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ অমনি চোখাচোখি হলে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ চমকে ভুঁয়ে নখটি ফোটায়,​​ চোখ দুটিকে নামায়।

 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ সইরা হাসে দেখে তাহার দোর দিয়ে মোর

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ নিতুই নিতুই কাজ-অকাজে হাঁটা,

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ করবে কী ও?​​ রোজ যে হারায় আমার দোরেই

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ শিথিল বেণির দুষ্টু মাথার কাঁটা!

 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ একে ওকে ডাকার ভানে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ আনমনা মোর মনটি টানে,

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ কী যে কথা সেই তা জানে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ ছল-কুমারী নানান ছলে আমারে সে জানায়।

 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ পিঠ ফিরিয়ে আমার পানে দাঁড়ায় দূরে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ উদাস নয়ান যখন এলোকেশে,

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ জানি,​​ তখন মনে মনে আমার কথাই ভাবতেছে সে,

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ মরেছে সে আমায় ভালোবেসে!

 

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ বই-হাতে সে ঘরের কোণে

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ জানি আমার বাঁশিই শোনে,

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ ডাকলে রোষে আমার পানে,

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ নয়না হেনেই রক্তকমল-কুঁড়ির সম চিবুকটি তার নামায়।

দেওঘর
পৌষ ১৩২৭

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।