কে তোমায় বলে ডাকাত বন্ধু,​​ কে তোমায় চোর বলে?

চারিদিকে বাজে ডাকাতি ডঙ্কা,​​ চোরেরই রাজ্য চলে!

চোর-ডাকাতের করিছে বিচার কোন সে ধর্মরাজ?

জিজ্ঞাসা করো,​​ বিশ্ব জুড়িয়া কে নহে দস্যু আজ?

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ বিচারক! তব ধর্মদণ্ড ধরো,

ছোটোদের সব চুরি করে আজ বড়োরা হয়েছ বড়ো!

যারা যত বড়ো ডাকাত-দস্যু জোচ্চোর দাগাবাজ

তারা তত বড়ো সম্মানী গুণী জাতি-সংঘেতে আজ।

রাজার প্রাসাদ উঠিছে প্রজার জমাট-রক্ত-ইঁটে,

ডাকু ধনিকের কারখানা চলে নাশ করি কোটি ভিটে।

দিব্যি পেতেছ খল কলওলা মানুষ-পেষানো কল,

আখ-পেষা হয়ে বাহির হতেছে ভূখারি মানব-দল!

কোটি মানুষের মনুষ্যত্ব নিঙাড়ি কলওয়ালা

ভরিছে তাহার মদিরা-পাত্র,​​ পুরিছে স্বর্ণ-জালা!

বিপন্নদের অন্ন ঠাসিয়া ফুলে মহাজন-ভুঁড়ি

নিরন্নদের ভিটে নাশ করে জমিদার চড়ে জুড়ি!

পেতেছে বিশ্বে বণিক-বৈশ্য অর্থ-বেশ্যালয়,

নীচে সেথা পাপ-শয়তান-সাকি,​​ গাহে যক্ষের জয়!

অন্ন,​​ স্বাস্থ্য,​​ প্রাণ,​​ আশা,​​ ভাষা হারায়ে সকল-কিছু

দেউলিয়া হয়ে চলেছে মানব ধ্বংসের পিছু পিছু।

 ​​ ​​ ​​ ​​ ​​​​ পালাবার পথ নাই,

দিকে দিকে আজ অর্থ-পিশাচ খুঁড়িয়াছে গড়খাই।

জগৎ হয়েছে জিন্দানখানা,​​ প্রহরী যত ডাকাত –

চোরে-চোরে এরা মাসতুতো ভাই,​​ ঠগে ও ঠগে স্যাঙাত।

কে বলে তোমায় ডাকাত,​​ বন্ধু কে বলে করিছ চুরি?

চুরি করিয়াছ টাকা ঘটি,​​ বাটি,​​ হৃদয়ে হানোনি ছুরি!

ইহাদের মতো অমানুষ নহ,​​ হতে পার তস্কর,

মানুষ দেখিলে বাল্মীকি হও তোমরা রত্নাকর!

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।