এতোটুকু প্রেম – জালাল উদ্দিন মুহম্মদ

0
85

তোমার জন্য অপেক্ষা করছিল হেমন্তের শেষ বিকেলের রোদ
কাঁপছিল আঘ্রাণের ধানের শীষে জমানো শিশির , অবশেষে
তুমি এলে জোছনার আড়িপাতা এক নিঝুম সন্ধ্যায়
নকশিকাঁথা ওমে … অতঃপর
কথা বলে, কাকচক্ষু জল

যুগল ভ্রু’র পিঁয়াজ-কাজল আর
দশ দিগন্ত আলো করে আসে এতোটুকু হেম
আলো আধাঁরিতে ভাসাই প্রথম প্রেমের ভেলা ।
মেঘে মেঘে এ লুকোচুরি খেলা কেউ দেখবে বলে
কাকের মতো দু’চোখ বন্ধ করে
গুঁজে দেই শনপাতা-ছাওয়া ঘরের চালে, কখনোবা
বালিশের নীচে, বুক পকেটের গভীরে- অতঃপর
সাত রাজার ধনের মতো চুপিসারে খুলে দেখি বার বার …..
অজানা আশঙ্কায় কখনো রাখি তারে জানালার কার্নিশে, আবার
ভাবি আচানক বৃষ্টিতে ভিজে যায় যদি জীবনের সাধ !
অথবা
কোন রত্নচোর যদি হানা দেয় অচম্বিত!
নিয়ে যায় আমার শত জনমের সঞ্চয় সব মনোমাণিক্য!
আমার রাজনীতিবিদ বাবাকে আরো বেশী ভয় …
তার চোখে পড়ে যদি এক ফোঁটা সরবত-এ-বেল
নিশ্চয় তিনি বানাবেন তারে প্রেমের ককটেল !
আর
সহপাঠি বন্ধুরা যদি আড় চোখে দেখে নেয় এতোটুকু রঙ!
বুঝে ফেলে যদি রাস্তার লোক!
এইসব ভেবে এতটুক প্রেম রাখি পাতার ভাঁজে,
আঁচলের গিঁটে ।
মা ঠিক জানে, এতোটুকু প্রেম জ্বলে ভাল
ওতে রান্না হয় ভাত
সেদ্ধ হয় একাকী রাত!
আমি লজ্জাবতী লতার মতো শরমের রঙ লুকোবার এতোটুকু স্থান
খুঁজে হই হয়রান !
ভাবনারা ভেবে মরে, চুল পুড়ে বাতাসে;
মনের ভুলে বুদ্ধি পালায় আবেগের জঙ্গলে –
এ্তোটুকু প্রেম আনমনে রেখে দেই বুকের খাঁজে, অন্তরের অন্তরে…
মন ও বুক হয় যুগপৎ উন্মন, উৎসুখ;
সহসা বদলায় মুখের রঙ -, আর
পাশ ফিরে দেখি, বুঝে গেছে সব বক ও কাক
আমিতো হতবাক !

দয়া করে মন্তব্য করুন

দয়া করে মন্তব্য করুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন